গেল মাসে টেক জায়ান্ট অ্যাপলের প্রেস ইভেন্টটি দেখার সময় আমি অধির আগ্রহে ছিলাম। মনে মনে ভেবেছিলাম অ্যাপল হয়ত নতুন কোন চমক দিবে। কিন্তু হতাশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু সম্প্রতি মাইক্রোসফটের প্রেস ইভেন্ট আমাকে চমকে দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি দারুণ কিছু ডিভাইস এনেছে। সেই ডিভাইসগুলো সম্পর্কে তুলে ধরব আমার আজকের এই লেখায়।

মাইক্রোসফট সারফেস ডুয়ো:

সবাইকে অবাক করে দিয়ে নতুন ডুয়াল স্ক্রীন ডিভাইস রিলিজ করেছে মাইক্রোসফট। সেটার সম্পর্কে কেউই কোন নিউজ জানত না বা কোন লিকস ইন্টারনেট থেকে পাওয়া যায়নি আগে কখনো। ডিভাইসটির নাম হলো ডুয়ো। এতে রয়েছে দুইটি ৫.৬ ইঞ্চি সাইজের স্ক্রীন। অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড।
মাইক্রোসফটের মতে, দুইটি স্ক্রীন থেকে আপনি অনেক বেশি প্রোডাক্টিভিটি মেইনটেইন করতে পারবেন এবং তারা গুগলের সাথে পার্টনারশিপ তৈরি করেছে যাতে বেস্ট অ্যান্ড্রয়েড সাপোর্ট দেওয়া সম্ভব। রয়েছে ফোন কলের সুবিধা। ডিভাইসটি কনফিগারেশন সম্পর্কে তেমন বিস্তারিত কোন তথ্য জানায়নি মাইক্রোসফট। আগামী বছর এটি বাজারে আসবে।

মাইক্রোসফট সারফেস ল্যাপটপ ৩ :

ডিসপ্লে : ডিভাইসটি ডিসপ্লের উপর নির্ভর করে দুইটি সংস্করণে পাওয়া যাবে। একটি ১৩.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে, আরেকটি ১৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে। ১৩.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের সংস্করণটির রেজুলেশন ২২৫৬*১৫০৪ পিক্সেল।অন্যটির রেজুলেশন ২৪৯৬*১৬৬৪ পিক্সেল। দুইটিরই পিপিআই ২০১।

প্রসেসর: ১৩.৫ ইঞ্চি সংস্করণটি কোয়াড কোর দশম জেনাররেশন ইন্টেল কোর আই৫ ও কোর আই ৭ প্রসেসরের পাওয়া যাবে। ১৫ ইঞ্চি সংস্করণটিতে থাকবে এএমডি রাইজেন ৫ ও ৭ ৩৫৮০ইউ মোবাইল প্রসেসর, সেখানে রেডিঅন ভেগা ৯ মাইক্রোসফট সারফেস এডিশন গ্রাফিক্স থাকবে।

র‍্যাম ও স্টোরেজ: মাইক্রোসফট সরফেস ল্যাপটপের সবগুলো সংস্করণে থাকবে ৮/১৬ গিগাবাইট এলপিডিডিআর৪এক্স র‍্যাম। ১২৮, ২৫৬, ৫১২ গিগাবাইটের পাশাপাশি ১ টেরাবাইট এসএসডি সংস্করণে মিলবে ল্যাপটপটি। তবে স্টোরেজ যত বাড়বে ততো বেশি বাড়তি অর্থ গুনতে হবে।

কানেক্টিভিটি: ১ টি ইউএসবি সি, ১ টি ইউএসবি এ, ৩.৫ এমএম হেডফোন জ্যাক, ১ সারফেস কানেক্ট পোর্ট। এছাড়া ওয়াইফাই ও ব্লুটুথ সুবিধা তো থাকছেই।

ব্যাটারি: মাইক্রোসফট জানিয়েছে দুইটি ডিভাইস ১১.৫ ঘন্টা ব্যাকআপ চার্জ দিবে।

দাম ও রঙ: সেন্ডস্টোন, প্লাটিনাম, কালো, নীল রঙে মিলবে এই ল্যাপটপটি। দুটি সংস্করণে সারফেস ল্যাপটপ ৩ এনেছে মাইক্রোসফট। ১৩ দশমিক ৫ ইঞ্চি সংস্করণটির দাম শুরু হয়েছে ৯৯৯ ডলার (৮৩ হাজার ৯১৬ টাকা) থেকে। ১৫ ইঞ্চি সংস্করণের দাম শুরু হয়েছে ১১৯৯ ডলার (১ লাখ ৭১৬ টাকা) থেকে।

মাইক্রোসফট সারফেস প্রো ৭ :

বহনযোগ্যের সুবিধা থাকায় মাইক্রোসফটের সারফেস প্রো সিরিজটি ইতোমধ্যে বিশ্বব্যাপি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সেই ধারাবাহিকতায় মাইক্রোসফট নতুন সংস্করণ উন্মোচন করে। এতে রয়েছে হাই স্পিড ইউএসবি সি পোর্ট, ৪০ % শক্তিশালী কোয়ার্ড কোর ইন্টেল চিপ, স্টুডিও মাইক্রোফোনসহ নতুন পেন যু্ক্ত হয়েছে এতে।

ডিসপ্লে : ১৩.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে সমৃদ্ধ ডিভাইসটির রেজুলেশন ২৪৯৬*১৬৬৪ পিক্সেল এবং পিপিআই ২৬৭। রয়েছে ইউএইচডি গ্রাফিক্স।

প্রসেসর: ডুয়েল কোর দশম জেনারেশনের ইন্টেল কোর আই ৩, ৫ এবং ৭ সংস্করণের প্রসেসরে পাওয়া যাবে ডিভাইসটি।

র‍্যাম ও স্টোরেজ: ৪, ৮, ১৬ গিগাবাইট এলপিডিডিআর৪এক্স র‍্যামের সংস্করণ মিলবে এটি। সেই সাথে ১২৮, ২৫৬, ৫১২ গিগাবাইটের পাশাপাশি ১ টেরাবাইট এসএসডি সংস্করণে মিলবে ল্যাপটপটি।
কানেক্টিভিটি: ১ টি ইউএসবি সি, ১ টি ইউএসবি এ, ৩.৫ এমএম হেডফোন জ্যাক, ১ সারফেস কানেক্ট পোর্ট। এছাড়া ওয়াইফাই ও ব্লুটুথ সুবিধা তো থাকছেই।

ব্যাটারি: ডিভাইসটি ১০.৫ ঘন্টা ব্যাকআপ সুবিধা দিবে।

ক্যামেরা : ডিভাইসটির রিয়েলে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা।

দাম ও রঙ: ডিভাইসটি প্লাটিনাম এবং কালো রঙে পাওয়া যাবে। মূল্য শুরু হয়েছে ৭৪৯ মার্কিন ডলার থেকে।

মাইক্রোসফট সারফেস ইয়ারবাডস:

ট্রু ওয়্যারলেস হেডফোন বাজারে প্রবেশ করেছে মাইক্রোসফট। সারফেস ইয়ারবাডস দুইটি ডিভাইসেই রয়ছে মাইক্রোফোন। ইয়ারবাডসটি ফোনের সাথে যুক্ত করে ফোনকে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। ইয়ারবাডসটির উপরের অংশ জেসচারের মাধ্যমে মিউজিক নিয়ন্ত্রণ, স্পোটিফাই ব্যবহার, কল রিসিভ করা বা কেটে দেয়া ইত্যাদি কাজগুলো করা যাবে। সবচেয়ে দারুণ সুবিধা হলো ভয়েস কমান্ডের মাধ্যমে মাইক্রোসফট অফিস, পাওয়ার পয়েন্ট ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। মূল্য ২৪৯ মার্কিন ডলার।

মাইক্রোসফট সারফেস প্রো এক্স:

সারফেস ৭ প্রোয়ের মতো সারফেস প্রো এক্সও টু-ইন-ওয়ান ল্যাপটপ। চাইলে এতেও আলাদাভাবে কিবোর্ড লাগিয়ে কাজ করা যাবে, ব্যবহার করা যাবে স্টাইলাস।

ডিসপ্লে : ১৩ ইঞ্চি ডিসপ্লে সমৃদ্ধ ডিভাইসটির রেজুলেশন ২৮৮৮০*১৯২০ পিক্সেল এবং পিপিআই ২৬৭। রয়েছে অ্যান্ড্রেন ৬৮৫ জিপিইউ।

প্রসেসর: ডিভাইসটিতে আছে কোয়ালকমের তৈরি মাইক্রোসফট-কাস্টম সংস্করণের এসকিউ১ এআরএম চিপ।

র‍্যাম ও স্টোরেজ: ৪, ও ১৬ গিগাবাইট এলপিডিডিআর৪এক্স র‍্যামের সংস্করণ মিলবে এটি। সেই সাথে ১২৮, ২৫৬, ৫১২ গিগাবাইট এসএসডি সংস্করণে পাওয়া যাবে।
কানেক্টিভিটি: ১ টি ইউএসবি সি, ১ টি ইউএসবি এ, ৩.৫ এমএম হেডফোন জ্যাক, ১ সারফেস কানেক্ট পোর্ট। এছাড়া ওয়াইফাই ও ব্লুটুথ সুবিধা তো থাকছেই।

ব্যাটারি: ডিভাইসটি ১৩ ঘন্টা ব্যাকআপ সুবিধা দিবে।
ক্যামেরা : ডিভাইসটির রিয়েলে রয়েছে ১০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা।

দাম : ডিভাইসটি দাম শুরু হয়েছে ৯৯৯ ডলার (৮৩ হাজার ৯১৬ টাকা) থেকে।

বন্ধুদের জানিয়ে দেন

আপনার মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here